এযাবৎ 50 টি গ্রন্থ সংযোজিত হয়েছে।
এই ধূলির ধরায় প্রেম ভালোবাসা—আলেয়ার আলো। সিক্ত হৃদয়ের জলাভূমিতে এর জন্ম। ভ্রান্ত পথিককে পথ হতে পথান্তরে নিয়ে যাওয়াই এর ধর্ম। দুঃখী মানব এরই লেলিহান শিখায় পতঙ্গের মতো ঝাঁপিয়ে পড়ে।
তিনটি পুরুষ, তিনটি নারী—চিরকালের নর-নারী প্রতীক—এই আগুনের দগ্ধ হলো, তাই নিয়ে এই গীতি-নাট্য।
তিনটি পুরুষ
মীনকেতু – রূপ-সুন্দর।
চন্দ্রকেতু – মহিমা-সুন্দর, ত্যাগ-সুন্দর।
উগ্রাদিত্য – শক্তি-মাতাল।
তিনটি নারী
কৃষ্ণা – চিরকালের ব্যর্থ-প্রেম নারী, জীবনে সে কাউকে ভালোবাসতে পারলে না – এই তার জীবনের চরম দুঃখ।
জয়ন্তী – যে-তেজে যে-শক্তিতে নারী রানি হয়, নারীর সেই তেজ সেই শক্তি।
চন্দ্রিকা – চিরকালের কুসুম-পেলব প্রাণ-চঞ্চল নারী, যে শুধু পৌরুষ-কঠোর পুরুষকে ভালোবাসতে চায়! মরুভূমির পরে যে বনশ্রী, সংগ্রামের শেষে যে কল্যাণ, এ তাই। এরই তপস্যায় পশু-নর মানুষ হয়, মৃত্যু-পথের পথিক প্রাণ পায়। …
নারীর হৃদয় – তাদের ভালোবাসা কুহেলিকাময়। এও এক আলেয়া। এ যে কখন কাকে পথ ভোলায়, কখন কাকে চায়, তা চির-রহস্যের তিমিরে আচ্ছন্ন।
যাকে সে চিরকাল অবহেলা করে এসেছে, – তাকেই সে ফিরে পেতে চায় তার চলে যাওয়ার পরে। যাকে সে চিরকাল চেয়েছে – সেই তখন তার চলে-যাওয়া প্রতিদ্বন্দ্বীর পিছনে পড়ে যায়।
পুরুষও তেমনই হৃদয় হতে হৃদয়ান্তরে তার মানসীকে খুঁজে ফেরে। তাই তার কাছে আজকার সুন্দর, কাল হয়ে ওঠে বাসি। হৃদয়ের এই তীর্থ-পথে তার যাত্রার আর শেষ নেই। তাই সে এক মন্দিরে পূজা নিবেদন করে আর মন্দিরের বেদিতলে গিয়ে লুটিয়ে পড়ে।
হৃদয়ের এই রহস্যই মানুষকে করেছে চির-রহস্যময়, পৃথিবীকে করেছে বিচিত্রসুন্দর।
‘আলেয়া’ তারই ইঙ্গিত।
আপনার জন্য প্রস্তাবিত
Scroll Up