এযাবৎ 50 টি গ্রন্থ সংযোজিত হয়েছে।
৫০
কোরাস:—
বদনা-গাড়ুতে গলাগলি করে,
নব-প্যাক্টের আশনাই,
মুসলমানের হাতে নাই ছুরি,
হিন্দুর হাতে বাঁশ নাই॥
আঁটসাঁট করে গাঁট-ছড়া বাঁধা
হল টিকি আর দাড়িতে,
‘বজ্র আঁটুনি ফসকা গেরো’? তা
হয় হোক তাড়াতাড়িতে!
একজন যেতে চাহিবে সুমুখে,
অন্যে টানিবে পিছনে,
ফসকা সে গাঁট হয়ে যাবে আঁট
সেই টানাটানি ভীষণে!
বুকে বুকে মিল হল নাকো, মিল
হল পিঠে পিঠে? তাই সই।
মিঞা কন, ‘কোথা দাদা মোর?’ আর
বাবু কন ‘মিঞা ভাই কই’?
বাবু দেন মেখে দাড়িতে ‘খেজাব’খেজাব : কলপ।,
মিঞা চৈতনে তৈল,
চার চোখে করে আড়-চোখাচোখি
কী মধু-মিলন হইল!
বাবু কন, ‘খাই তোমারে তুষিতে
ওই নিষিদ্ধ কুঁকড়ো!’
মিঞা কন, ‘মিল আরও জমে দাদা,
যদি দাও দুটো টুকরো!
মোদের মুরগী হল রামপাখি, দাদা,
তাও হল শুদ্ধি?
বাদশাহী গেছে, মুরগীও গেল,
আর কার লোভে যুদ্ধি॥’
বাবু কন, ‘পরি লুঙি বি-কচ্ছ
তোমাদের দিল্ তুষিতে!’
মিঞা কন, রাখি ফেজে চৈতনি—
ঝাণ্ডা সেই সে খুশিতে!
আমাদের কত মিঞা ভাই করে
বাস তব বারাণসীতে,
(আর)
বাত হলে ভাই ভাত খাই নাকো
আজও তাই একাদশীতে!’
বাবু কন, ‘দ্যাখো চটিকা ছাড়িয়া
সেলিমী নাগরা ধরেছি!’
মিঞা কন, গরু জবাই-এর পাপ
হতে তাই দাদা তরেছি!’
বাবু কন, ‘এত ছাড়িলেই যদি,
ছেড়ে দাও খাওয়া বড়টা!’
মিঞা কন, ‘দাদা মুরগী তো নাই,
কী দিয়া খাইব পরটা!’
বাবু কন, ‘গরু কোরবানী করা
ছেড়ে দাও যদি মিঞা ভাই,
তোরে
সিনান করায়ে সিঁন্দুর পরায়ে
মার মন্দিরে নিয়া যাই।‘
মিঞা কন, ‘যদি আল্লা মিঞার
ঘরে নাহি লও হরিনাম,
বলদের সাথে ছাড়িব তোমারে,
যা হয় হবে সে পরিণাম!’
‘সারা-রারা-রারা’ সহসা অদূরে
উঠিল হোরির হররা!
শম্ভু ছুটিল বম্বু তুলিয়া,
ছকু মিঞা নিল ছোররা!
লাগিল হেঁচকা হেঁইয়ো হাঁইয়ো,
টিকি দাড়ি ওড়ে শূন্যে–
ধর্মে ধর্মে করে কোলাকুলি
নব-প্যাক্টেরই পুণ্যে।
বদনা-গাড়ুতে পুন ঠোকাঠুকি,
রোল উঠিল ‘হা হন্ত!’
ঊর্ধ্বে থাকিয়া সিঙ্গি-মাতুল
হাসে ছিরকুটি দন্ত!
মসজিদ পানে ছুটিলেন মিঞা,
মন্দির পানে হিন্দু;
আকাশে উঠিল চির-জিজ্ঞাসা –
করুণ চন্দ্রবিন্দু!
চন্দ্রবিন্দু সূচী
আপনার জন্য প্রস্তাবিত
ভালো লাগা জানান
Scroll Up