এযাবৎ 50 টি গ্রন্থ সংযোজিত হয়েছে।
রূপেরে সওদা কে করিবি তোরা আয় রে আয়,
নওরোজের এই মেলায়!
ডামাডোল আজি চাঁদের হাট
লুট হলো রূপ হলো লোপাট!
খুলে ফেলে লাজ শরম-টাট
রূপসীরা সব রূপ বিলায়
বিনি-কিম্মতে হাসি-ইঙ্গিতে হেলাফেলায়
নওরোজের এই মেলায়!
শা-জাদা উজির নওয়াব-জাদারা–রূপকুমার
এই মেলার খরিদ-দার!
নও-জোয়ানীর জহুরি ঢের
খুঁজিছে বিপণি জহরতের,
জহরত নিতে–টেড়া আঁখের
জহর কিনিছে নির্বিকার!
বাহানা করিয়া ছোঁয় গো পিরান জাহানারার
নওরোজের রূপকুমার!
ফিরি করে ফেরে শা-জাদি বিবি ও বেগম সাব
চাঁদ-মুখের নাই নেকাবনেকাব — মুখাবরণ।?
শূন্য দোকানে পসারিনি
কে জানে কী করে বিকি-কিনি!
চুড়ি-কঙ্কণে রিনিঠিনি
কাঁদিছে কোমল কড়ি রেখাব।
অধরে অধরে দর-কষাকষি–নাই হিসাব!
হেম-কপোল লাল গোলাব।
হেরেম-বাঁদিরা দেরেমদেরেম — রৌপ্যমুদ্রা। ফেলিয়া মাগিছে দিল,
নওরোজের নও-ম’ফিলম’ফিল — সভা!
সাহেব গোলাম, খুনি আশেকআশেক — প্রেমিক।,
বিবি বাঁদি,–সব আজিকে এক!
চোখে চোখে পেশ দাখিলা চেক
দিলে দিলে মিল এক সামিল।
বে-পরওয়া আজ বিলায় বাগিচা ফুল-ত’বিলত’বিল — তহবিল।!
নওরোজের নও-মফিল!
ঠোঁটে ঠোঁটে আজ মিঠি শরবত ঢাল উপুড়,
রণ-ঝনায় পায় নূপুর।
কিসমিস-ছেঁচা আজ অধর,
আজিকে আলাপ ‘মোখতসরমোখতসর — সংক্ষেপ।’!
কার পায়ে পড়ে কার চাদর,
কাহারে জড়ায় কার কেয়ূর,
প্রলাপ বকে গো কলাপ মেলিয়া মন-ময়ূর,
আজ দিলের নাই সবুর।
আঁখির নিক্তি করিছে ওজন প্রেম দেদার
ভার কাহারা অশ্রু-হার।
চোখে চোখে আজ চেনাচেনি,
বিনি মূলে আজ কেনাকেনি,
নিকাশ করিয়া লেনাদেনি
ফাজিলফাজিল — অতিরিক্ত। কিছুতে কমে না আর!
পানের বদলে মুন্না মুন্না — সাধারণত বাঁদির নাম। মাগিছে পান্না-হার!
দিল সবার ‘বে-কারার বে-কারার — ধৈর্যহারা।!
সাধ করে আজ বরবাদ করে দিল সবাই
নিমখুন কেউ কেউ জবাই!
নিকপিক করে ক্ষীণ কাঁকাল,
পেশোয়াজ কাঁপে টালমাটাল,
গুরু ঊরু-ভারে তনু নাকাল,
টলমল আঁখি জল-বোঝাই!
হাফিজ উমর শিরাজ পালায়ে লেখে ‘রুবাইরুবাই — চতুষ্পদী কবিতা।’!
নিমখুন কেউ কেউ জবাই!
শিরী লায়লিরে খোঁজ ফরহাদ খোঁজে কায়েস
নওরোজের এই সে দেশ!
ঢুড়েঁ ফেরে হেথা যুবা সেলিম
নূরজাহানের দূর সাকিম,
আরংজিব আজ হইয়া ঝিম
হিয়ায় হিয়ায় চাহে আয়েশ!
তখ‍্‍ত-তাউস কোহিনূর কারও নাই খায়েশ,
নওরোজের এই সে দেশ!
গুলে-বকৌলি ঊর্বশীর এ চাঁদনি-চক,
চাও হেথায় রূপ নিছক।
শারাব সাকি ও রঙে রূপে
আতর লোবান ধুনা ধূপে
সয়লাব সব যাক ডুবে,
আঁখি-তারা হোক নিষ্পলক।
চাঁদো মুখে আঁকো কালো কলঙ্ক তিল-তিলক।
চাও হেথায় রূপ নিছক!
হাসিস-নেশায় ঝিম মেরে আছে আজ সকল
লাল পানির রংমহল।
চাঁদ-বাজারে এ নওরোজের
দোকান বসেছে মোমতাজের
সওদা করিতে এসেছে ফের
শাজাহান হেথা রূপ-পাগল।
হেরিতেছে কবি সুদূরের ছবি
ভবিষ্যতের তাজমহল–
নওরোজের স্বপ্ন-ফল!
কৃষ্ণনগর,
১৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৩৩৪
আশেক — প্রেমিক। ত’বিল — তহবিল। দেরেম — রৌপ্যমুদ্রা। নেকাব — মুখাবরণ। ফাজিল — অতিরিক্ত। বে-কারার — ধৈর্যহারা। ম’ফিল — সভা। মুন্না — সাধারণত বাঁদির নাম। মোখতসর — সংক্ষেপ। রুবাই — চতুষ্পদী কবিতা।
জিঞ্জীর সূচী
আপনার জন্য প্রস্তাবিত
ভালো লাগা জানান
Scroll Up