এযাবৎ 48 টি গ্রন্থ সংযোজিত হয়েছে।
দীওয়ান-ই-হাফিজ
গজল ৪
হে মোর সুন্দর! চাঁদের চাঁদমুখ
তোমার রৌশনরৌশন : জ্যোতির্ময়। রূপ মেখেই,
রূপের জৌলুস তোমার টোলদার
চিবুক-গণ্ডের কূপ থেকেই।
ওষ্ঠে প্রাণ! হায়, দেখতে চাও তায়,
গোল-বদন ওই ঘোমটা-হীন,
জানাও ফরমানফরমান : হুকুম। জ্বলবে আর না
নিববে জান্‌টার মোমটা ক্ষীণ!
তোমার কেশপাশ, আমার দিল্ বাস –
জমবে জোট সেই এক জা-গায়, –
আরজআরজ : প্রার্থনা, নিবেদন। এই ক্ষীণ মিটবে কোন দিন?
আর না বিচ্ছেদ – দেকদেক : বিরক্তি। লাগায়!
নার্গিস-অক্ষি! হরলে সব সুখ
তোমার নয়নার অত্যাচার
মস্ত্ চাউনির হস্তে তাই কই
যাক সতীত্বও হত্যা ছার!
খুলবে এইবার নয়ন-পাত তার
বদ-নসিববদ-নসিব : হতভাগ্য। মোর নিঁদ-আতুর,
আজ যে প্যারিরপ্যারি : প্রিয়তমা। উজ্‌লিউজ্‌লি : উজ্জ্বল। স্মিরতি-য়স্মিরতি-য় : স্মৃতিতে।
আনলে নির্ঝর ক্ষীণ আঁসুর!
পাঠিয়ো ভোর ব্যয় ফুল্ল ফুল তুল
তোমার গণ্ডের ফুল-তোড়া!
যদিই পাই তায় তোমার বোঁস্তারবোঁস্তার : কুঞ্জ।
খোশবুদাখোশবুদা : সুরভিত। খাকখাক : মৃত্তিকা। ধুল থোড়া!
দে খবর দিল্- দার পিয়ায় সই
বক্ষে আজ মোর জোর ব্যথা,
মাথার দিব্যি রইল সই লো,
জরুর কস তায় মোর কথা!
জামশেদেরজামশেদ : পারস্যের বাদশা, যাঁর আমলে শরাব-জাম বা এক নতুন ধরনের মদের পিয়ালার প্রচলন হয়। দর্— বারের সাকি!
বাড়ুক পরমাই মদ্য-পিয়ো!
তোমার হস্তে এ মদের ভাঁড় মোর
পুরল নাই ভাই যদ্যপিও!
‘য়্যাজদ্’য়্যাজদ্ : পারস্যের এক প্রদেশ। মুল্‌কের বাসিন্দায় সব
বলবে, বন্ধু ভোর-সমীর!
(ভরুক ময়দান লুটাক পায়-পায়
অকৃতজ্ঞের খণ্ড শির!)
“বহুত দূর পথ বহুত বিচ্ছেদ
স্মৃতির ভুল হায় হয়নি তায়,
তাদের বাদশার গোলাম আজকেও
তাদের খোশনামখোশনাম : প্রশংসা। কয় সদাই।”
চলতে মোর পথ সামলো প্যারি,
আঁচর, খাক আর খুন হতে;
তোমার এশ্‌কেরএশ্‌ক : প্রেম। নিরাশ খুন-দিল্
লোহুয়লোহুয় : রক্তে। পথ এ পূর্ণ যে!
এয়্ শাহানশা্‌হ! ওয়াস্তেওয়াস্ত : দোহাই। আল্লার
শক্তি দাও এই, অহর্নিশ্-
আশমানের ন্যায় চুম্বি অমনি
তোমার খাস রং- মহল শীষ!
আশিস চায় এই ‘হাফিজ’ হরদম,
কও ‘আমিন’আমিন : তথাস্তু। সব খুব মনে –
“লাল শিরীনলাল শিরীন : মধুভরা। ঠোঁট পিয়ার রোজ পাই,
ভরাই লাখ লাখ চুম্বনে!”

ছন্দসূত্র :–
এয়্ ফরোগে মাহে হোসন আজ রূয়ে রোখ্‌শা নে শুমা
আবরূয়ে খূবি আজ চা- হো জনখদা নে শুমা।
নির্ঝর সূচী
আপনার জন্য প্রস্তাবিত
ভালো লাগা জানান
Scroll Up